যেকোন সময় ভারতের সঙ্গে পরমাণু যু দ্ধ শুরু হতে পারে: ইমরান খান

স্টাফ রিপোর্টার:আন্তর্জাতিক ডেস্ক- কাশ্মির ইস্যুতে ভারতের কড়া সমালোচনা করলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তিনি বলেন, ভারতীয় কর্মকর্তাদের সঙ্গে আর কোনও সংলাপে যেতে আগ্রহী নন তিনি। গত ৫ আগস্ট ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিলের পর প্রথম কোন বিদেশী গণমাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্টকে এক সাক্ষাৎকার দেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তান সরকারের গৃহীত পদক্ষেপ সম্পর্কে সাক্ষাৎকারে মন্তব্য করেন। ইতিমধ্যে, ভারতের সঙ্গে পাকিস্তান সমস্ত বাণিজ্যিক সম্পর্ক বাতিল করেছে। কূটনৈতিক সম্পর্ক শিথিল করাসহ ইসলামাবাদে নিযুক্ত ভারতের রাষ্ট্রদূতকে বহিষ্কার করেছে। ভারতের সব সিমেনা পাকিস্তানে নি ষিদ্ধ করা হয়েছে। তাছাড়া, কাশ্মীর ইস্যু জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদেও তোলা হয়েছে। তবে, একমাত্র চীন বাদে নিরাপত্তা পরিষদের সবাই কাশ্মীর ইস্যু ভারত ও পাকিস্তানের অভ্যন্তরীণ বিষয় বলে জানিয়েছে।

ইমরান খান বলেন, তাদের সঙ্গে আলোচনার কোনও মানে নেই। আমি অনেক কথা বলেছি। এখন আমি পেছনে ফিরে তাকালে দেখতে পাই, আমি শান্তি প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করেছি, আর তারা একে দুর্বলতা বলে মনে করেছে। আমাদের এর বেশি আর কিছু করার নেই।’ কাশ্মীরের আশি লাখ মানুষের জীবন ঝুঁকিতে রয়েছে বলে ইমরান জানান। তিনি কাশ্মীরে জাতিগত নিধন ও গণহ ত্যা সংঘটিত হওয়ার ঘটনা ঘটছে বলে আশঙ্ক্ষা করেন। সম্প্রতি, পাকিস্তান অধিকৃত কাশ্মীরের প্রেসিডেন্ট সরদার মাসুদ খান ভারত অধিকৃত কাশ্মীরে গণহ ত্যার অভিযোগ করেছিলেন।

ইমরান খান বলেন, কাশ্মিরে ভারত কোনও ভুল অভিযান চালাতে পারে। পাকিস্তানের বিরু দ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারে, তখন পাকিস্তানও জবাব দিতে বাধ্য হবে। ভারত ও পাকিস্তান উভয় রাষ্ট্র পরমাণু শক্তিধর রাষ্ট্র। পাকিস্তান আশঙ্কা করছে, ভারতের সঙ্গে যেকোন সময় পরমাণু যু দ্ধ সংঘটিত হতে পারে। পরমাণু যু দ্ধের আশঙ্কা প্রকাশ করে ইমরান বলেন, ‘ভারত ও পাকিস্তান দুটি পরমাণু শক্তিধর রাষ্ট্রের মধ্যে ক্রমাগত উত্তে জনা বৃদ্ধি পাচ্ছে। ফলে, কাশ্মীর ইস্যুতে যেকোন ঘটনা ঘটতে পারে। আমরা যে সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছি, তা বিশ্বের জন্য একটি সতর্কবার্তা।’ কাশ্মীর ইস্যুতে ইমরান খানের অভিযোগ সম্পর্কে ভারত সরকারিভাবে কোন মন্তব্য করেনি। তবে, ইমরান খানের অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে ভারত দাবি করেছে। সূত্র সময়ের কণ্ঠস্বর

এবার আফগানিস্তানে গিয়ে ভারত-পাকিস্তান-ইরান যু দ্ধ করুক : ডোনাল্ড ট্রাম্প

স্টাফ রিপোর্টার:এবার আফগানিস্তানে গিয়ে ভারত-পাকিস্তান-ইরান যু দ্ধ করুক: ট্রাম্প
আন্তর্জাতিক ডেস্ক- ভারত, পাকিস্তান, ইরান, তুরস্ক কিংবা রাশিয়ার মতো দেশকে আফগানিস্তানে গিয়ে ‘স ন্ত্রাসের বিরুদ্ধে’ যুদ্ধ করতে বলেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। খবর এএফপির।

বুধবার হোয়াইট হাউজে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে ট্রাম্প বলেন, আফগানিস্তানে স ন্ত্রাস দমনে অন্য দেশগুলো তেমন একটা পদক্ষেপ নেয়নি। শুধু যুক্তরাষ্ট্র সেটি করছে।

‘আমরা শতভাগ স ন্ত্রাস নির্মূল করেছি, সেটা করেছি রেকর্ড সময়ে,’ দাবি করে ট্রাম্প বলেন, ‘আমরা কি সেখানে আরও ১৯ বছর থাকতে পারি? একটা সময়ে এইসব দেশকে আফগানিস্তানে গিয়ে যু দ্ধ করতে হবে।

আফগানিস্তান থেকে আমেরিকা তাদের সব সৈন্য সরাবে না, এমন ঘোষণার একদিন বাদে অন্য দেশগুলোকে উদ্দেশ্যে করে এই কথা বললেন ট্রাম্প।
ট্রাম্প বলেন, ‘আফগানিস্তান থেকে আমাদের দূরত্ব ৭০০ মাইল। অথচ ভারত এবং পাকিস্তান তাদের দরজার কাছে।

দেখুন ভারত সেখানে আছে। তারা কিন্তু যুদ্ধ করছে না। করছি আমরা। পাকিস্তান তো একদম কাছে, তারা করছে অল্প পরিসরে। খুব, খুব অল্প। এটা ঠিক না।

রাস্তার পাশে চা বানাচ্ছেন মমতা, ভিডিও

স্টাফ রিপোর্টার: রাস্তার পাশে চা বানাচ্ছেন মমতা! ভিডিও ভাইরালআন্তর্জাতিক ডেস্ক- তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় চা বিক্রি শুরু করেছেন! এমন কথা শোনার পর চোখ যে কারোরই কপালে উঠবে। মমতা দোকানে চা তিনি বানিয়েছেন ঠিকই, তবে দোকানদার হিসেবে নয়।

গ্রামের একটি স্টলে স্থানীয় নেতা ও জনসাধারণকে নিজ হাতে চা বানিয়ে খাওয়ালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে সেই ভিডিও আপলোড হতেই তা ভাইরাল হয়ে যায়। এরপর থেকেই প্রশংসার জোয়ারে ভাসছেন মমতা।

ভিডিওতে আরও দেখা যায়, নিজের হাতে চা তৈরির পর মমতা তা মগে ঢেলে কাগজের কাপে করে সবার হাতে তুলে দিচ্ছেন। স্থানীয়দের ভাষায়, যার আগুন ঝরানো বক্তৃতা নিমেষে উদ্বুদ্ধ করে আপামর রাজ্যবাসীকে সেই মুখ্যমন্ত্রীই সবাইকে সাবধান করছেন ঠিকভাবে চায়ের কাপ ধরার জন্য। যাতে গরম চায়ে কারোর হাত না পুড়ে যায়!

দিঘা সফরকালে মুখ্যমন্ত্রীর এই মমতাময়ী রূপ দেখে মুগ্ধ গ্রামবাসী ও সহকর্মীরা। মমতা নিজেও উপভোগ করেছেন এই ঘটনা। ফেসবুকে জানিয়েছেন সেই কথা।
জানা যায়, রাস্তার পাশের ‘রাধারাধি স্টোর্সে’ নামক একটি চায়ের দোকানে ততক্ষণে পঞ্চাশ জন লোকের ভিড়। সমানে সঙ্গে থাকা রাস্তায় দাঁড়িয়ে গোটা পঁচিশ ছোটবড় গাড়ি।

তক্তপোশ ছেড়ে উঁকি দিয়ে পরিমল দেখেন, দোকানের কাঠের বেঞ্চে সত্যিই বসে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর পাশে মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়, শুভেন্দু অধিকারী, সাংসদ শিশির অধিকারী, জেলাশাসক, পুলিশকর্তা, সাংবাদিক বন্ধুরা।
তখনি তড়িঘড়ি গায়ে গেঞ্জি চড়িয়ে চায়ের জল বসালেও তখনও ঘোর কাটেনি তার। কারণ ফুটন্ত জলে চা পাতা ছাড়তেই মুখ্যমন্ত্রী দোকানের ভিতরে ঢুকে পড়েছেন। পরিমলের কথায়, ‘‘আমি দুধ গুলছি।
মমতা বললেন, সরো। তার পর ছাঁকনি ধরে চা ছাঁকতে শুরু করলেন। সেই চা খাওয়াতে হল।’ তাকে ঘিরে জমা ভিড়ের দিকে তাকিয়ে মমতা হাসতে হাসতে বলেন, ‘বাড়িতে তো চা করিই।

মিনিট দশ-পনেরোর মধ্যে চায়ের আড্ডা ভেঙে গেলেও রাত পর্যন্ত তা নিয়েই আড্ডা চলেছে পরিমলের রাধারানি স্টোর্সে। বেজেই চলেছে ফোন। এক সময় বামেদের সমর্থক পরিমল এখন তৃণমূলকে ভোট দেন।
তবে রাজনীতির সাতেপাঁচে থাকেন না। তবু আচমকা এই ঘটনার পরে ফোন করে এক পরিচিতকে বলেছেন, ‘এসেছিলেন গো। যাওয়ার সময় দু’হাজার টাকাও দিয়ে গিয়েছেন।’
এদিকে নিউ দিঘার সায়েন্স সিটির মতোই তার উল্টো দিকের চায়ের দোকান এ দিন বিকেল থেকেই অন্যতম দ্রষ্টব্য। চায়ের দোকানে মুখ্যমন্ত্রীকে দেখে ভিড়ের মধ্যে থেকে বেশ কয়েকটি আবেদন-নিবেদন এসেছে। জনসংযোগের এই নিজস্ব স্টাইলে তা সামলেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

এ দিন দিঘায় পূর্ব মেদিনীপুরের প্রশাসনিক বৈঠক সেরে মুখ্যমন্ত্রী সোজা চলে আসেন ওড়িশা লাগোয়া গ্রাম দত্তপুরে। কাঁথি লোকসভা কেন্দ্রের অন্তর্গত গ্রামের মানুষের কাছে জানতে চান, সরকারি কোন প্রকল্পের সুবিধা পান। কোনটা পান না। কিছু নতুন কাপড় বিলি করেন মুখ্যমন্ত্রী। তবে গ্রামবাসীদের ঘর, রেশন, ভাতা সংক্রান্ত বেশ কিছু অভিযোগ শুনতে হয় মুখ্যমন্ত্রীকে।
তবে ওই যাত্রাপথে দত্তপুর থেকে ফেরার পথেই পরিমলের দোকানে নেমেছিলেন মমতা। সন্ধ্যা থেকে মুখ্যমন্ত্রীর এই জনসংযোগ যাত্রাই ঘুরছে মানুষের মুখে মুখে।

বাবা করেছে ধর্ষ ণ, মা করেছে গ র্ভপাত..!

স্টাফ রিপোর্টার:
মেয়েটির বয়স যখন ছয় বছর, তখন থেকেই নিজের বাবার লালসার শিকার হয় সে। এভাবেই কেটে গিয়েছে ১৬ বছর। এর মধ্যে বাবার ধর্ষ ণের কারণে বারবার গর্ভবতী হয়ে পড়ে সে। প্রতিবারই কনট্রাসেপটিভ পিল খাইয়ে গ র্ভপাত করিয়ে দেয় মা।

নিজের সঙ্গে ঘটে চলা এই নারকীয় নিপীড়নকে ভবিতব্য হিসেবেই মেনে নিয়েছিল মেয়েটি। কিন্তু পাষণ্ড ওই বাবা এবার ছোট বোনের দিকে হাত বাড়াল। বাবার এমন পাশবিকতা দেখে আর চুপ করে থাকতে পারেনি সে।

নিজেকে বাঁচাতে যা করতে পারেনি, ছোট বোনকে বাঁচাতে শেষ পর্যন্ত পুলিশের দ্বারস্থ হয় ভারতের উত্তরপ্রদেশের ২২ বছরের সেই মেয়ে। ভারতের শিশু সুরক্ষা আইনে অভিযুক্ত ৪৪ বছরের ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে মামলা করেছে মেয়ে।
তবে মামলা দায়েরের পর থেকে পলাতক রয়েছে ওই বাবা। মেয়েকে দিনের পর দিন ধর্ষণে স্বামীকে সহায়তা করেছেন স্ত্রী। এই অভিযোগে মেয়েটির মাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

নির্যাতিতার অভিযোগ, তাঁর বয়স যখন ৬ তখন থেকেই বাবা ধর্ষ ণ করত তাঁকে ৷ একাধিকবার গর্ভবতী হয়ে পড়েছিলেন তিনি ৷ তখন মা গর্ভপাত করিয়েছিলেন ৷ কারণ মা সবই জানতেন৷
এ সব কিছুকেই নিজের ভাগ্য বলে মেনে নিয়েছিলেন ওই তরুণী৷ কিন্তু ছোট বোনের দিকেও যখন বাবা হাত বাড়ায় তখনম আর মেনে নিতে পারেননি ওই তরুণী।

১৪ বছরের ছোট মেয়েটি পুলিশকে জানায়, বাবার হাতে বারবার যৌন হেন স্থার শিকার হলেও ধর্ষ ণের হাত থেকে তাকে বাঁচিয়েছে দিদিই ৷
দুই বোন জানিয়েছে, বাড়িতে তাদের আরও দুই ভাই ও কয়েকজন আত্মীয় এই ঘটনার কথা জানলেও কখনও প্রতিবাদ করেননি তাঁরাও ৷ এরপরেই বড় বোন আশা জ্যোতি কেন্দ্রে ফোন করে কোনও রকমে নিজেদের অবস্থার কথা জানান ৷ পুলিশ এসে এরপরেই দুই বোনকে উদ্ধার করে ৷ প্রতীকী চিত্র ৷
সূত্র সময়ের কণ্ঠস্বর

একসাথে বসছেন ট্রাম্প – মোদী, জানালো হোয়াইট হাউজ

স্টাফ রিপোর্টার:একসাথে বসছেন ট্রাম্প- মোদী, জানালো হোয়াইট হাউজ আন্তর্জাতিক ডেস্ক:ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে টেলিফোনে কথা হয়েছে ডোনাল্ড ট্রাম্পের। দুজনের অন্তত ৩০ মিনিট ফোনে কথা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। কাশ্মীর সহ একাধিক বিষয় নিয়ে হয়েছে আলোচনা। দুজনে যে ফের একবার দেখা করতে চলেছেন সেকথা বিবৃতিতে জানালো হোয়াইট হাউস।

সোমবার মোদীর সঙ্গে ট্রাম্পের কথা হয়। এরপর হোয়াইট হাউসের তরফ থেকে এক বিবৃতিতে জানানো হয় কথোপকথনে কী নিয়ে আলোচনা হয়েছে। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘আগামিদিনে ভারত ও আমেরিকা অর্থনৈতিক জোট আরও শক্ত করবে কীভাবে,সেই বিষয়ে কথা হয়েছে।

পাশাপাশি ভারত-পাকিস্তানের অশান্তি যেন প্রশমিত হয়, সেই বিষয়টাতেও জোর দিয়েছেন ট্রাম্প। তবে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যস্থতা করার কোনও কথা উল্লেখ করেননি তিনি। একইসঙ্গে হোয়াইট হাউস জানিয়েছে যে, দুই নেতাই ফের দেখা করার পরিকল্পনা করছেন।
ভারতের বিদেশমন্ত্রক আগেই জানায় যে, ৩০ মিনিটের এই কথোপকথনে দ্বিপাক্ষিক এবং আঞ্চলিক বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে।

চলতি বছরে জুনের শেষে ওসাকাতে তাদের বৈঠকের কথা তুলে ধরেন৷ ওসাকাতে দ্বিপাক্ষিক আলোচনা নিয়ে অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে আশা প্রকাশ করেছেন তিনি৷ এই বিষয়ে একের পর এক ট্যুইটও করেছেন তিনি৷
খবর অনুযায়ী, পাকিস্তান প্রসঙ্গেও ট্রাম্প-মোদীর কথা হয় এবং পাকিস্তানের অ্যান্টি-ইন্ডিয়া কাজকর্মে বিপদ বাড়ছে, এবং ভারত এই ধরণের কাজ বরদাস্ত করবে না বলে মোদী জানান বলে জানা গিয়েছে৷

এদিকে এর আগেই, জম্মু-কাশ্মীর নিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প নিজের অবস্থান স্পষ্ট করেন৷ কাশ্মীর ইস্যু ভারত-পাকিস্তানের নিজেদের মধ্যেই সমাধান করা উচিত বলে মনে করেন তিনি৷ নিউইয়র্কে ইউএনএসসির বৈঠকের কয়েক ঘন্টা আগে ট্রাম্প পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সঙ্গে ফোনে কথা বলেন৷
জানা যায়, হোয়াইট হাউস জানিয়েছে, জম্মু-কাশ্মীরের পরিস্থিতি নিয়ে ভারত এবং পাকিস্তানের মধ্যেই দ্বিপাক্ষিক কথা হওয়া প্রয়োজন৷ সেই সঙ্গে এই বিষয়ের গুরুত্ব কতটা সেই নিয়েও কথা হয় বলে জানা যায়৷ ডেপুটি প্রেস সেক্রেটারি হোগান গিদলে শুক্রবার দুপুরে এই বিষয়ে জানান৷

রাষ্ট্র সঙ্ঘে বৈঠকের আগে অন্তত ২০ মিনিট কথা বলেন ট্রাম্প ও ইমরান খান। এমনটাই জানান পাকিস্তানের বিদেশমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি। শুক্রবার সাংবাদিক সম্মেলন ডেকে পাকিস্তানের বিদেশমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি বলেন,‘আজ প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে ফোনে কথা বলেন। এই অঞ্চলের পরিস্থিতি এবং বিশেষত কাশ্মীরের পরিস্থিতি নিয়ে দুজন মত বিনিময় করেন। ট্রাম্প ও ইমরান খান আফগানিস্তান নিয়েও আলোচনা করেন।

পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে ভূমিধসে নি হত ৭ জন

স্টাফ রিপোর্টার:পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে ভূমিধসে নিহত ৭

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ ভারি বৃষ্টিপাতের ফলে হওয়া ভূমিধসে পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে সাতজন নি হত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে।চীনা সংবাদ সংস্থা সিনহুয়া এক প্রতিবেদনে জানায়, শনিবার পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের রাওলাকোট শহরে ভূমি ধসে চারটি বাড়ি ধ্বংস হয়ে এই হতাহতের ঘটনা ঘটে।

রাওয়ালকোট শহরের সহকারী কমিশনার স্থানীয় গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, এখন পর্যন্ত দুটি বাড়ির ধ্বংসাবশেষ থেকে দুটি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে এবং উদ্ধারকারীরা বাকি মৃতদেহগুলো উদ্ধারের চেষ্টা করছে।

তিনি আরো জানান, নগরীতে ভারি বৃষ্টির কারণে ভূমিধসের ঘটনা ঘটেছে। এই সময় মাঝারি বৃষ্টিপাতের কারণে ওই এলাকায় উদ্ধারকাজ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে এবং আরো ভূমিধসের আশঙ্কা করা হচ্ছে।

এর আগে জুলাইয়ে,পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের নীলুম উপত্যকায় বজ্রপাত ও ভারি বর্ষণে মসজিদ এবং ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে কমপক্ষে ২৮ জন নি হত এবং আরো কয়েকজন নিখোঁজ হয়েছিল।

মোদির বিশাল বন্দি শিবিরের পরিকল্পনায় আতঙ্কে মুসলিমরা

স্টাফ রিপোর্টার: মোদির বিশাল বন্দি শিবিরের পরিকল্পনায় আতঙ্কে মুসলিমরা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক- ভারতের আসাম রাজ্যে বসবাস করা অভিবাসীদের মনে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে। এর কারণ আসামে ৪০ লাখ মানুষের ভারতীয় নাগরিকত্ব কেড়ে নিয়েছে দেশটির সরকার। যাদের অধিকাংশ মুসলিম।
বাংলাদেশ এবং মিয়ানমার সীমান্তের রাজ্য আসামে ইতিমধ্যে অভিবাসী ধরার অভিযানে নেমেছে বিজেপি সরকার। এমন অনেক মানুষ আছেন, যাদের জন্ম ভারতে; অথচ মোদির নেতৃত্বাধীন হিন্দুত্ববাদী রাজনৈতিক দল তাদের নাগরিকত্ব হুমকির মুখে ফেলে দিয়েছে!

নিউইয়র্ক টাইমস জানিয়েছে, রাজ্য সরকার দ্রুততম সময়ের ভেতর বিশাল বন্দি শিবির করার উদ্যোগ নিয়েছে। ইতিমধ্যে গ্রেপ্তার করা হয়েছে শত শত মানুষকে, যার মধ্যে রয়েছেন একজন সেনা সদস্য। মানবাধিকার কর্মী এবং আইনজীবীরা বলছেন, নাগরিকত্বের তালিকা থেকে বাদ পড়ার এবং জেলে যাওয়ার শঙ্কায় ইতিমধ্যে বেশ কয়েকজন আত্মহত্যা করেছেন।

কিন্তু মোদি সরকার পিছু হঠতে নারাজ। একাধিকবার তিনি এবং তার কর্মীরা তথাকথিত ‘অবৈধ প্রবেশকারীদের’ দেশছাড়া করার হুমকি দিয়েছেন।
এমন পরিস্থিতির ভেতর কাশ্মীর ইস্যু ভয় বেশি বাড়িয়েছে।

জম্মু-কাশ্মীরের স্বাধীনতা হরণ করে অঞ্চলটিকে ভেঙে দুটি কেন্দ্রশাসিত রাজ্য করার ঘোষণা দিয়েছে ক্ষমতাসীন বিজেপি। আন্তর্জাতিক মহলকে উপেক্ষা করে সেখানের সাধারণ মানুষকে করা হয়েছে অবরুদ্ধ।

স্থানীয় আইনজীবী হাফিজ রশিদ চৌধুরী বলেন, এনআরসির খসড়া থেকে বাদ পড়া ৪০ লাখ মানুষের মধ্যে অর্ধেকই চূড়ান্ত তালিকায় জায়গা পাবেন না। তাদের ভবিষ্যৎ আসলেই অনিশ্চিত।

পাকিস্তানের মসজিদে বোমা বিস্ফোরণ, নি হত ৫ জন

স্টাফ রিপোর্টার: পাকিস্তানের মসজিদে বো মা বি স্ফোরণ, নি হত-৫ এবং আ হত-১২
আন্তর্জাতিক ডেস্ক:জুমার নামাজ চলাকালীন কেঁপে উঠল পাকিস্তানের বেলুচিস্তান প্রদেশের রাজধানী কোয়েটার একটি মাদ্রাসা।এ বিস্ফোরণে অন্তত পাঁচজন নি হত হয়েছেন এবং কমপক্ষে ১২ জন আ হত হয়েছেন বলে জানিয়েছে পাকিস্তানের জাতীয় দৈনিক ডন।আজ শুক্রবার (১৬ আগস্ট) কোয়েটার কুচলাক নামক এলাকার একটি মাদ্রসায় জুমার নামাজ চলাকালীন বিস্ফোরণটি ঘটে।

ইতিমধ্যে পাকিস্তানের বিভিন্ন টেলিভিশনে বিস্ফোরণের ভিডিও ফুটেজ দেখানো হয়েছে। টেলিভিশন ফুটেজে দেখা গেছে, বি স্ফোরণের ফলে মাদ্রাসার দেয়াল এবং ছাদ ব্যাপকভাবে ধসে পড়ছে। বিস্ফোরণে আহতদের কোয়েটা সিভিল হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

ইমপ্রোভাইসড এক্সপ্লোসিভ ডিভাইসের (আইইডি) বিস্ফোরণের মাধ্যমে হামলাটি চালানো হয়েছে বলে জানিয়েছে কোয়েটা পুলিশ। পুলিশ জানায়, মাদ্রাসাটির মূল অংশের নিচে আইইডি পুঁতে রাখা হয়।
দেশটির স্বাধীনতা দিবস উদযাপনের দু’দিনের মাথায় এ হামলা চালানো হল। হামলার দায় এখন পর্যন্ত নেয়নি কোনো জঙ্গি সংগঠন। কোয়েটায় গত চার সপ্তাহের মধ্যে চতুর্থবারের মতো বিস্ফোরণের ঘটনা এটি। গত ২৩ জুলাই কোয়েটার পশ্চিমাঞ্চলীয় বাইপাস এলাকায় বো মাহামলায় অন্তত ৩ জন নিহত এবং ১৮ জন আহত হয়।

এর পর ৩০ জুলাই কোয়েটায় একটি পুলিশ স্টেশনের পাশে হামলায় পাঁচজন নি হত এবং ৩০ জন মানুষ আ হত হয়। সেই হামলার দায় স্বীকার করে তেহরিক-ই-তালেবান নামের একটি সশস্ত্র গোষ্ঠী।
বর্তমানে মসজিদটির চারদিকে নিরাপত্তাকর্মীরা ঘিরে রেখেছে।

ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে ব্যাপক শেলিং…

স্টাফ রিপোর্টার:
উত্তপ্ত ভারত-পাকিস্তান সীমান্ত। আজ বৃহস্পতিবার  স্বাধীনতা দিবসের সন্ধ্যায় সীমান্ত সংলগ্ন একাধিক ঘাঁটিতে শেলিং শুরু করেছে ভারত পাকিস্তান সেনারা। । সীমান্ত সংলগ্ন একাধিক  ঘাঁটি লক্ষ্য করে ভারতীয় সেনা প্র ত্যাঘাত করে ভারী অস্ত্রে সাহায্যে চলে শেলিং।

জানা যাচ্ছে, ভারতীয় সেনার প্রত্যাঘাতে গুঁড়িয়ে গিয়েছে একাধিক পাক সেনা ঘাঁটি। তিন পাকিস্তান সেনাও এই প্র ত্যাঘাতে খতম হয়েছে বলে ভারতীয় সেনার তরফে জানা গিয়েছে। ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে সীমান্ত। উরি-রাজৌরি এবং কেজি সেক্টরে চলছে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে ব্যাপক শেলিং।

অন্যদিকে পাকিস্তান সেনার তরফে দাবি করা হয়েছে যে সে দেশের সেনার হামলায় পাঁচ ভারতীয় সেনা নাকি নিহত হয়েছেন। কিন্তু সেই দাবি সম্পূর্ণ ভুয়ো বলে উড়িয়ে দিয়েছে ভারতীয় সেনা।

এদিকে বারবার যুদ্ধের হুমকি দিচ্ছেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। এই অবস্থায় ভারতের স্বাধীনতা দিবসে সীমান্তে শেলিং শুরু করে পাকিস্তান সেনা অভিযোগ ভারতের। ভারত-পাকিস্তান আন্তজাতিক সীমান্তের কেজি সেক্টর সহ একাধিক সেক্টরে বিনা প্ররোচনাতে ভারতীয় সেনা ছাউনি লক্ষ্য করে শেলিং শুরু চালায় পাকিস্তান। শুধু সেনা ছাউনি নয়, সীমান্ত সংলগ্ন গ্রামগুলিকেও টার্গেট করছে পাকিস্তান সেনা।

ভারতের  দাবি কড়া ভাষায় পাকিস্তান সেনাকে জবাব দিচ্ছে ভারতীয় সেনাও। আধুনিক অস্ত্রে সীমান্তের ওপারে সেনা ছাউনিগুলিকে গুঁড়িয়ে দিতে পালটা প্রত্যাঘাত করে ভারতীয় সেনা।
গত কয়েকদিন ধরে কাশ্মীর ইস্যুতে উত্তপ্ত ভারত এবং পাকিস্তান সীমান্ত। যে কোনও প্ররোচনা রুখে দিতে সেনাবাহিনীকে হাই-অ্যালার্টে রাখা হয়েছে।

শুধু তাই নয়, একেবারে খোলা হাতে পাকিস্তানকে জবাব দেওয়ার জন্যে নির্দেশও দেওয়া হয়েছে। সেই মতো পাকিস্তান সেনাবাহিনীকে যোগ্য জবাব দিতে থাকে ভারত। দুপক্ষের গোলাগুলিতে উত্তপ্ত ভারত-পাকিস্তান সীমান্ত। যদিও ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে চলা গোলাগুলিতে এখনও পর্যন্ত কোনও ক্ষয়ক্ষতির খবর জানা যায়নি। তবে সীমান্ত সংলগ্ন গ্রামগুলি থেকে সাধারণ মানুষকে নিরাপদ জায়গায় সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

অন্যদিকে, ১৫ অগস্টের ঠিক আগে কাশ্মীর সীমান্ত দিয়ে জঙ্গি অনুপ্রবেশের খবর আসে ভারতীয় সেনাদের কাছে। মঙ্গলবার রাতে উরি সেক্টরে একদল জঙ্গি অনুপ্রবেশের চেষ্টা চালিয়েছিল পাক জঙ্গিরা। পাক সেনার মদতে তাদের ভারতে ঢোকানোর চেষ্টা চলছিল বলে জানিয়েছে ভারতীয় সেনা।
সূত্র সময়ের কণ্ঠস্বর

এটি ঐতিহাসিক ভুল, মোদিকে কঠিন পরিণতি ভোগ করতে হবে!

স্টাফ রিপোর্টার:
ভারত-নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির পদক্ষেপ একটি কৌশলগত ভুল আর এজন্য তাকে চরম মূল্য দিতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

বুধবার আজাদ কাশ্মীরের রাজধানী মুজফ্ফরাবাদে আইনসভায় বিশেষ অধিবেশনের ব্যবস্থা করেন ইমরান খান। ওই অধিবেশনে তিনি দাবি করেন, ভারত সামরিক অভিযান চালিয়ে আজাদ কাশ্মীর দখল করার পরিকল্পনা করছে। পাক প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘কেবল কাশ্মীরই নয়, তাদের লক্ষ্য পাকিস্তান দখল করা।’

এরপরই তিনি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে হুঁশিয়ার করে দিয়ে বলেন, ‘ভারতের প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আমার বার্তা—তোমরা আরো অগ্রসর হলে ভুল করবে। কারণ তোমাদের প্রতিটা ইটের জবাবে আমরা পাথর ছুড়বো এবং শেষ পর্যন্ত লড়াই চালিয়ে যাব।’

ইমরান খান বলেন, এই মূহুর্তে আরএসএস নামে ভয়ঙ্কর একটি মতবাদ আমাদের সামনে রয়েছে, যারা হিটলারের নাৎসি বাহিনীর আদর্শে অনুপ্রাণিত। আমিই প্রথম বিশ্ববাসীর সামনে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর আসল চেহারা তুলে ধরেছি।
তিনি বলেন, “আরএসএস সদস্যরা মনে করে-‘মুসলমানরা তাদের ওপর কয়েকশ বছর শাসন করেছে। তাই এখন মুসলমানদের থেকে প্রতিশোধ নিতে হবে। কারণ তারা যদি আমাদের (হিন্দুদের) ওপর শাসন না করতো, তাহলে আমরা একটি শক্তিশালী গোষ্ঠীতে পরিণত হতাম’- এটিই আরএসএসের মতাদর্শ।”

ইমরান খান বলেন, এমন হিংসাত্মক মনোভাব ও মতাদর্শ নিয়ে বিগত কয়েক দশক আরএসএস বেশ তৎপর হয়েছে। বাবরি মসজিদ ধ্বংস এটির একটি অংশ ছিল। বিগত ৫ বছরে কাশ্মীর নিয়ে ভয়ঙ্কর পরিকল্পনা সাজিয়েছে।

কাশ্মীরে মোদি শেষ কার্ড খেলে ফেলেছেন মন্তব্য করে তিনি বলেন, আরএসএসের মিশন বাস্তবায়নে মোদি কাশ্মীরে তার শেষ কার্ড খেলে ফেলেছেন। আমি মনে করি এটি তার ঐতিহাসিক একটি ভুল। যার জন্য তাকে কঠিন পরিণতি ভোগ করতে হবে।

কাশ্মীরি জনগণকে আশ্বস্ত করে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী বলেন, এখন থেকে আমি স্বাধীন কাশ্মীরের দূত হিসেবে কাজ করব।
সূত্র সময়ের কণ্ঠস্বর