প্রশিক্ষণ থেকে বহিষ্কৃত হল ব্যবসায়ী পেটা নো সেই এএসপি

স্টাফ রিপোর্টার:প্রশিক্ষণ থেকে বহিষ্কৃত হল ব্যবসায়ী পেটানো সেই এএসপি
সময়ের কণ্ঠস্বর, বগুড়া- বগুড়ায় আহম্মেদ সাব্বির নামের এক মালামাল সরবরাহকারীকে পুলিশ লাইন্সের অফিসার্স মেসে ডেকে লাঠিপেটাসহ শৃংখলা ভঙ্গের দায়ে বগুড়ার শিবগঞ্জ সার্কেলের এএসপি কুদরত-ই-খুদাকে প্রশিক্ষণ থেকে এক বছরের জন্য বহিষ্কার করা হয়েছে।

শুভর বিরুদ্ধে একাধিক ব্যবসায়ীকে মারধর, বাড়িতে পুলিশ পাঠিয়ে হয়রানি ছাড়াও ৩৪তম বিসিএস ক্যাডারদের বিভিন্ন ব্যাচের ছয় মাসব্যাপী বুনিয়াদি প্রশিক্ষণে গিয়ে আনসার সদস্যদের মাদক দিয়ে ফাঁসানোর হুমকির অভিযোগ রয়েছে।

পল্লী উন্নয়ন একাডেমি (আরডিএ) বগুড়ার মহাপরিচালক আমিনুল ইসলাম প্রশিক্ষণ থেকে ঈদুল আযহার আগে শুভকে এক বছরের জন্য বহিষ্কারের তথ্য নিশ্চিত করেছেন।তবে কুদরত-ই খুদা শুভ দাবি করেন, তার বাবা অসুস্থ। তাকে দেখভালের জন্য অব্যাহতি নিয়েছেন। কেউ তাকে বহিষ্কার করেনি।

বগুড়া আরডিএর নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, গত মার্চে বিসিএস ক্যাডার বিভিন্ন ব্যাচের ৬ মাসব্যাপী বুনিয়াদী প্রশিক্ষণ শুরু হয়। আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর প্রশিক্ষণের সমাপনী হওয়ার কথা। সেখানে অন্য কর্মকর্তাদের সঙ্গে বগুড়ার শিবগঞ্জ সার্কেলের এএসসি ৩৪তম বিসিএস ক্যাডার কুদরত-ই-খুদা শুভ অংশ নেন।

এ প্রশিক্ষণ চলাকালে তার বিরুদ্ধে শৃংখলা ভঙ্গের নানা অভিযোগ ওঠে। দেরিতে আসার ব্যাপারে প্রশ্ন করলে তিনি এক আনসার সদস্যকে গালিগালাজ, মাদক দিয়ে ধরিয়ে দেয়ার হুমকি ও তদবিরের মাধ্যকে তাকে বদলি করান। এরপর তার বাড়িতেও পুলিশ পাঠানো হয়। তার বিরুদ্ধে কর্মচারীদের সঙ্গে অসদাচরণের অভিযোগ ওঠে।
সূত্রটি আরও জানায়, এএসপি শুভর বিরুদ্ধে শৃংখলা ভঙ্গের ৫টি অভিযোগ ওঠায় শৃংখলা কমিটি ঈদের আগে তাকে এক বছরের জন্য প্রশিক্ষণ থেকে বহিষ্কার করে।

আরডিএ বগুড়ার মহাপরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) আমিনুল ইসলাম এর সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, বুনিয়াদী প্রশিক্ষণে অংশ নেয়া এএসপি শুভর বিরুদ্ধে ৫টি সুনির্দিষ্ট শৃংখলা ভঙ্গের অভিযোগ আছে। ৩ সদস্যের শৃংখলা কমিটির সুপারিশে তাকে এক বছরের জন্য প্রশিক্ষণ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

তিনি বলেন, তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় শাস্তির ব্যবস্থা নেয়া যেত। তবে অন্য প্রশিক্ষণার্থীদের সতর্ক করতে তাকে গুরু অপরাধে লঘু শাস্তি দেয়া হয়েছে। তবে তিনি বাংলাদেশ লোক প্রশাসন প্রশিক্ষক কেন্দ্রে এ শাস্তির বিরুদ্ধে আপিল করতে পারবেন।তিনি আরও বলেন, এএসপি শুভর বিরুদ্ধে বগুড়া পুলিশ লাইন্সে এক ব্যবসায়ীকে পেটানোর অভিযোগও রয়েছে।

বগুড়ায় বিনা অপরাধে আহম্মেদ সাব্বির নামে এক সরবরাহকারীকে পুলিশ লাইন্সের অফিসার্স মেসে ডেকে নির্দয়ভাবে লাঠিপেটা করেন।এ ছাড়া এএসপি শুভর বিরুদ্ধে জেলা প্রশাসকের গাড়ির চালককেও মা রপিটের অভিযোগ ওঠে।

বগুড়ার পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভুঞা জানান, এএসপি শুভকে বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ থেকে বহিষ্কারের কথা শুনেছেন। তিনি বলেন,‘এটা প্রশিক্ষণ প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের অভ্যন্তরীণ ব্যাপার।ব্যবসায়ী আহম্মেদ সাব্বিরকে মারধরের ঘটনায় এএসপি শুভর বিরুদ্ধে কোনও শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে কিনা, জানতে চাইলে পুলিশ সুপার বলেন,‘তদন্ত কমিটির রিপোর্ট পুলিশ হেডকোয়ার্টারে পাঠানো হয়েছে।

নয়ন বন্ডের বাসায় চুরি, পাওয়া যাচ্ছে না গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র

স্টাফ রিপোর্টার: নয়ন বন্ডের বাসায় চুরি, পাওয়া যাচ্ছে না গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র
দেশজুড়ে ব্যাপক আলোচিত রিফাত শরীফ হ ত্যা মামলার প্রধান আসামি পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযদ্ধে’ নি হত নয়ন বন্ডের বাসায় চুরি হয়েছে।

চোরেরা তালা ভেঙে বাসায় প্রবেশ করে প্রায় ১০ ভরি স্বর্ণালংকার ও প্রায় অর্ধ লক্ষাধিক নগদ টাকাসহ গুরুত্বপূর্ণ কিছু কাগজপত্র নিয়ে গেছে বলে দাবি করেছেন নয়নের মা সাহিদা বেগম। তিনি এ ব্যাপারে বরগুনা থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

সাহিদা বেগম জানান, তিনি এক আত্মীয়ের বাড়িতে বেড়াতে গিয়েছিলেন। সকালে প্রতিবেশীরা তালা ভাঙা দেখে তাকে খবর দেন। খবর পেয়ে তিনি বাসায় এসে দরজার তালা ভাঙা দেখতে পান। পরে ঘরে প্রবেশ করে আসবাবপত্র এলোমেলো দেখে বাসায় থাকা নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার খুঁজতে থাকেন।

তিনি জানান, নয়নের মিলাদের জন্য বাসায় তিনি ৪১ হাজার টাকা রেখেছিলেন। এছাড়াও ঘরে প্রায় দশ ভরি স্বর্ণালংকার ছিল। তার পূত্রবধূ বড় ছেলে মিরাজের স্ত্রীর কক্ষেও ১২ হাজার টাকা এবং পূত্রবধূ ও নাতনির স্বর্ণালঙ্কার খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। সবকিছুই চোরেরা চুরি করে নিয়ে গেছে বলে তিনি দাবি করেন। নয়নের কিছু কাগজপত্র ও জমির দলিলপত্রও চুরি হয়েছে বলে তিনি পুলিশের কাছে দেয়া বিবরণে উল্লেখ করেন।

নয়ন বন্ডের বাসার পাশেই অপর একটি বাসার ভাড়াটিয়া আনোয়ার হোসেন জানান, সকালে তিনি বাসা থেকে বের হয়ে নয়নের বাসার তালা ভাঙা অবস্থায় দেখতে পান। পরে নয়নের মাকে মুঠোফোনে বিষয়টি জানান। তিনি এসে বাসায় প্রবেশ করে টাকা ও স্বর্ণালংকার খুঁজে পাননি।
এ ব্যাপারে বরগুনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবির হোসেন মাহমুদ জানান, নয়নের মা চুরির খবরটি জানিয়েছেন। তার বাসায় পুলিশ পাঠানো হয়েছে। পুলিশ ঘটনার সত্যতা যাচাইয়ের পর আমরা অভিযোগ গ্রহণ করে ব্যবস্থা নেব।

সুখের সংসার তছনছ করে দিয়েছে “বিএনপি’র” নামক শব্দটা…

স্টাফ রিপোর্টার:
অব‌শে‌ষে কারাগার থে‌কে মু‌ক্তি পে‌য়ে‌ছেন ঢাকার মিরপুর ৬ নং ওয়ার্ড জাসাস সভাপতি মো.রিয়াজ (৩৮)। দ‌লের জন্য জেল খে‌টে‌ছেন প্রায় এক বছর। এরই মধ্যে ব‌ন্দী জীব‌নে হারি‌য়ে‌ছে অ‌নেক কিছু। সু‌খের সংসার তছনছ ক‌রে দি‌য়ে‌ছে ‌বিএন‌পি’র নামক এই শব্দটা। কিন্তু যা‌দের জন্য এ‌তো কিছু তারাও রা‌খে‌নি কোন খবর?

য‌দিও সম‌য়ের কন্ঠস্ব‌রে গত ০৯ এ‌প্রিল অ’সহায় রিয়াজ‌কে নি‌য়ে সংবাদ প্রকা‌শের পর দ‌লের শীর্ষ স্থান থে‌কে জা‌মি‌নের ব্যবস্থা করা‌তে নি‌র্দেশ দেওয়া হ‌য়। এরপর যা‌দের দা‌য়িত্ব দেওয়া ছিল জা‌মিন করা‌তে, তারাও এ‌ড়ি‌য়ে গে‌ছেন দা‌য়িত্ব থে‌কে। ত‌বে অব‌শে‌ষে রিয়া‌জকে‌ জা‌মি‌নের ব্যবস্থা ক‌রে কথা রে‌খে‌ছেন শরীয়তপু‌র জেলার নড়িয়া উপজেলা যুবদলের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান সাগর।

জানা গে‌ছে, গত বছ‌রের ১৬ সেপ্টেম্বর বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে ঢাকা উত্তর মহানগর পল্লবী থানা বিএনপির উদ্যোগে এক‌টি বিক্ষোভ মিছিল করা হয়। উক্ত মিছিল থেকে পল্লবী থানা কতৃক গ্রেপ্তার হন মিরপুর ৬ নং ওয়ার্ড বিএনপির সাংস্কৃতিক সংগঠন জাতীয়তাবাদী সামাজিক সাংস্কৃতিক সংস্থা (জাসাস) সভাপতি ও মৃত: ওয়াজেদ আলীর ছে‌লে রিয়াজ (৪৩)।

প‌রে তাকে পল্লবী থানার বিশেষ ক্ষমতা আইনে ৫৩/৯/১৮ এবং বিস্ফোরক আইনে ৫৪/৯/১৮ দুটি মামলায় গ্রেপ্তার দেখা‌নো হয়। এরপর থে‌কে তার কোন খোঁজ খবর রা‌খে‌নি সংগঠ‌নের কোন নেতাকর্মীরা। য‌দিও প‌রিবা‌রের পক্ষ থে‌কে বিষয়‌টি অবগত ক‌রেছি‌লেন দ‌লের শীর্ষ পর্যা‌য়ের নেতাদের।
এ ঘটনার প্রায় ৪ মাস পরে কাশিমপুর কারাগারে রিয়াজের সাথে পরিচয় হয় নড়িয়া উপজেলা যুবদলের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান সাগরের। এরপর অসহায় হ‌য়ে রিয়াজ একবা‌রের জন্য হ‌লেও সার্বিক সহোযোগিতা করে জা‌মিন করা‌নোর জন্য অনু‌রোধ ক‌রেন।

গত ২১ মার্চ জামিনে মু্ক্তি পান মতিউর রহমান সাগর। মুক্ত পে‌য়েই ছু‌টে গে‌ছেন বিএন‌পির কে‌ন্দ্রীয় কার্যাল‌য়ে। গত ২১ মার্চ গি‌য়ে কার্যাল‌য়ে দেখা মে‌লে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর সা‌থে। বিস্তা‌রিত শু‌নে ‌রিজ‌ভী জাসাস নেতা রিয়াজকে মুক্ত করার জন্য নি‌র্দেশও দেন ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সেক্রেটারি আহসান উল্লাহ হাসান কমিশনাকে। কিন্তু ইটপাথ‌রের শহ‌রে কেউ কথা রা‌খে‌নি?

এই ঘটনা নি‌য়ে গত ০৯ এ‌প্রিল এক‌টি সংবাদ প্রকা‌শ হয় জন‌প্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘সম‌য়ের কন্ঠস্ব‌রে। ‘সু‌খের সংসার তচনছ, একবা‌রের জন্য হ‌লেও জা‌মি‌নে মু‌ক্তি চায় বিএন‌পি নেতা রিয়াজ’ ‌শিরোনা‌মে সংবাদ‌টি প্রকা‌শের পর লন্ডনের ব‌সে নজরে আসে বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের। তাৎক্ষণিক তার পক্ষ থে‌কে নির্দেশ দেওয়া হয় রিয়াজের জামিনের ব্যবস্থা কর‌তে। কিন্তু কে করা‌বে জামিন? এর ক‌য়েক‌ দি‌নের মাথায় মতিউর রহমান সাগরকে মালয়েশিয়া থেকে তারেক রহমানে সহকা‌রি বেলায়েত না‌মে এক ব্যা‌ক্তি ফোন করে ‌রিয়া‌জকে জা‌মি‌নের ব্যবস্থা করার জন্য।

জামিনের সকল খরচ তারাই বহন করবে ব‌লে যোগাযোগ করে ঢাকা মহানগর উত্তর যুবদলের সেক্রেটারি মিল্টন। সি.এম.এম কোটে খরচ বাবৎ কিছু টাকা দেন তারা সাগর‌কে। এরপর থে‌কে বিএন‌পির আর কোন নেতা খবর নেয়নি।

কিন্তু রিয়া‌জকে মুক্ত কর‌তে শেষ পর্যন্ত চেষ্টা ক‌রে সফল হ‌য়েছেন মতিউর রহমান সাগর। বিস্ফোরক আইনের মামলায় সি.এম.এম আদালত জামিন নামঞ্জুর করলে সি.আর মিস করে ঢাকা মহানগর হাকিমের আদালেতে নেওয়া হয় মামলা‌টি। সেখা‌নেও নামঞ্জুর হলে সর্বশেষ গত ২১ জুলাই দুটি মামলায় জামিন দেয় উচ্চ আদালত (হাইকোট)। ৮ আগস্ট কাশিমপুর কারাগার থে‌কে জা‌মি‌নে মু‌ক্তি পায় রিয়াজ।

সদ্য জা‌মি‌নে মু‌ক্তি পাওয়া রিয়া‌জের সা‌থে কথা হয় প্র‌তি‌বেদ‌কের। তি‌নি সময়ের কণ্ঠস্বরকে ব‌লেন, বিএন‌পির ক‌রে জীবনটা তছনছ হ‌য়ে গে‌ছে। জীবন থে‌কে হা‌রি‌য়ে গে‌ছে এক বছর। ব‌ন্দি থাকা অবস্থায় প‌রিবার ছাড়া কেউ কোন খবর রা‌খে‌নি। একপর্যা‌য়ে অসহায় হ‌য়ে প‌রিবারও যোগা‌যোগ বন্ধ ক‌রে দেয়। বিএন‌পির বড় বড় নেতারা আমার বিষয়‌টি জান‌লেও এ‌গি‌য়ে যায়‌নি কেউ। ত‌বে আমাকে দেওয়া কথা রে‌খে‌ছেন সাগর ভাই। তার কার‌ণে আর সম‌য়ের কন্ঠস্ব‌রের দা‌য়িত্বশীল প্র‌তি‌বেদ‌নে অব‌শে‌ষে জা‌মি‌নে বের হ‌য়ে‌ছি কারাগার থে‌কে।
সূত্র সময়ের কণ্ঠস্বর

ভারত থেকে আমাদানিকৃত ওষুধে মরছে সব ধরনের মশা

স্টাফ রিপোর্টার: ভারত থেকে আমাদানিকৃত ওষুধে মরছে সবধরনের মশা!
বুধবার ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের চিফ স্টোর অফিসার মো. নুরুজ্জামান জানিয়েছেন,ভারত থেকে আমাদানি করা মশা নিধনের ওষুধ ফিল্ড টেস্টে উত্তীর্ণ হয়েছে।
\
তিনি বলেন, ফিল্ড টেস্টে ৮০ শতাংশ মশা মারা গেলেই সেটাকে আমরা কার্যকর বলে ধরে নেই। এখানে আমরা দেখছি একটা শতভাগ এবং একটা ৯৯ শতাংশের বেশি। এটাকে এখন আশানুরূপ বলা যায়। এখন এই ওষুধ ল্যাবে পাঠানো হবে। সেখান থেকে সন্তোষজনক ফলাফল আসলে মেয়রের অনুমোদনক্রমে আমরা তা ক্রয় করব।

আগামীকাল থেকে চীন থেকে আমদানিকৃত নতুন ওষুধ ছিটানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ওই ওষুধের কার্যকারিতা প্রমাণ হয়েছে বলে জানিয়েছেন মেয়র আতিকুল ইসলাম। পৃথক সংবাদ সম্মেলনে মেয়র বলেন, ২০১৫ সাল থেকে সিন্ডিকেট করে আটকে রাখা হয়েছিলো কার্যকর ওষুধ আমদানি। কেবল দুটি প্রতিষ্ঠানই সরবরাহ করতো এই ওষুধ।

তিনি বলেন, লোকবল বাড়ানো এবং ফগার মেশিন আমদানি করা হচ্ছে। আশা করি স্বল্প সময়ের মধ্যে ভালো ফল পাওয়া যাবে।

এ সময় কলকাতা থেকে আসা গবেষণা দলের শুভ দে বলেন, মশার ওষুধ বৃষ্টির মধ্যে ছিটানো যাবে না। এ ছাড়া ১৫ কিলোমিটার বেগে যখন বাতাস প্রবাহিত হয় তখনো মশার ওষুধ ছিটানো থেকে বিরত থাকতে হবে। আর বায়ার করপোরেশনের ওষুধ মশা নিধনে কার্যকর। মশার ওষুধে যেন পরিবেশের ক্ষতি না হয় সে দিকে লক্ষ রাখত হবে। নতুন মশার ওষুধে মশা মরতে সর্বোচ্চ ২৪ ঘণ্টা লাগবে বলে তিনি জানান।

মশার ওষুধ পরীক্ষার সময়ে ডিএসসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান, সচিব মোস্তফা কামাল মজুমদার, প্রধান ভাণ্ডার ও ক্রয় কর্মকর্তা মো: নুরুজ্জামানসহ অন্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

থানায় গণধ র্ষণ, খুলনার সেই ওসি-এসআই ক্লোজড

স্টাফ রিপোর্টার: থানায় গণ ধর্ষণ: খুলনার সেই ওসি-এসআই ক্লোজড
সময়ের কণ্ঠস্বর, খুলনা- খুলনা জিআরপি থানা হাজতে সংঘবদ্ধ ধ র্ষণের ঘটনায় থানার ওসি উছমান গণি পাঠান ও এসআই নাজমুল হককে ক্লোজড করা হয়েছে। বুধবার (৭ আগস্ট) তদন্ত কমিটির প্রধান কুষ্টিয়া সার্কেলের এএসপি ফিরোজ আহমেদ এ তথ্য জানিয়েছেন।
তিনি বলেন, আমরা এখন আদালতের কোনো কিছু পাইনি। এমনকি ভিকটিমের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গেও কথা বলা হয়নি।

এর আগে, গত শুক্রবার (২ আগস্ট) খুলনার জিআরপি থানার ওসি ওসমান গণি পাঠানসহ পাঁচ পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে এক তরুণীকে (২১) সংঘবদ্ধ ধ র্ষণের অভিযোগ ওঠে। অভিযোগ পাওয়ার পর আদালতের নির্দেশে সোমবার (৫ আগস্ট) দুপুরে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগে ভিকটিমের ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়। পরীক্ষা শেষে ওই নারীকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

ডাক্তারি পরীক্ষা শেষে হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান মো. শফিউজ্জামান সাংবাদিকদের জানান, ওই নারীর শরীরে কোনো ক্ষতস্থানের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। কিন্তু অনেক সময় ক্ষত পাওয়া না গেলেও ধ র্ষণের ঘটনা ঘটতে পারে। সংগৃহীত আলামত পরীক্ষার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। ওই প্রতিবেদন হাতে পাওয়ার পর ধর্ষণের বিষয়ে নিশ্চিতভাবে বলা যাবে।

ওই তরুণীর দুলাভাই জানান, গত ২ আগস্ট তার শ্যালিকা যশোর থেকে ট্রেনে খুলনায় আসেন। ট্রেন থেকে নামার পর সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে খুলনা রেলস্টেশনে কর্তব্যরত জিআরপি পুলিশের সদস্যরা তাকে সন্দেহজনকভাবে আটক করে নিয়ে যায়।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, পরে গভীর রাতে জিআরপি থানার ওসি ওসমান গনি পাঠান প্রথমে তাকে ধ র্ষণ করে। এরপর আরও চারজন পুলিশ সদস্য পালাক্রমে তাকে ধ র্ষণ করে। পরদিন শনিবার তাকে পাঁচ বোতল ফেনসিডিলসহ একটি মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে প্রেরণ করা হয় বলে তার শ্যালিকা তাদের জানিয়েছেন।

নির্যাতিতার দুলাভাই বলেন, আদালতে বিচারকের সামনে নেওয়ার পর তার শ্যালিকা জিআরপি থানায় তাকে গণধ র্ষণের বিষয়টি তুলে ধরেন। এরপর আদালতের বিচারক জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তার ডাক্তারি পরীক্ষার নির্দেশ দেন।

তিনি বলেন, ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে ওসি ওসমান গনি মোটা অঙ্কের টাকা দেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছেন। কিন্তু সমঝোতায় রাজি না হওয়ায় তিনি হুমকি দিচ্ছেন।

ছাত্রলীগ নেতাকে প্রকাশ্যে থা প্পড় দিয়েছেন শোভন..!

স্টাফ রিপোর্টার:
নিজ অনুসারী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজয় একাত্তর হলের সাংগঠনিক সম্পাদক দিদার মাহমুদ আব্বাসকে প্রকাশ্যে থা প্পড় দিয়েছেন ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন।

মঙ্গলবার (৬ আগস্ট) বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রে (টিএসসি) শোকের মাস আগস্ট উপলক্ষে বঙ্গবন্ধুর পলাতক ছয় খু নিকে প্রতীকী ফাঁ সি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠানে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যদর্শীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, বিকেল ৫টার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিতে ছাত্রলীগ আয়োজিত কর্মসূচিতে অংশ নিতে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের নেতাকর্মীরা প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। এ সময় শোভনের গাড়ি টিএসসিতে এসে পৌঁছে। তখন ছাত্রলীগের উপস্থিত নেতাকর্মীরা তাকে প্রটোকল দিতে স্লোগান দেন। নিজের জায়গা ঠিক রাখতে এসময় কয়েক হলের নেতাকর্মীদের মধ্যে ধাক্কাধাক্কি র ঘটনাও ঘটে। এ ধাক্কাধা ক্কির মধ্যে অনেককে ডিঙিয়ে শোভনকে সালাম দিতে যায় আব্বাস।

এসময় কয়েকশত দলীয় নেতাকর্মীর সামনে আব্বাসকে থা প্পড় দিয়ে সরিয়ে দেন শোভন। এ ঘটনার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে।

যেখানে দেখা যায়, পাশ থেকে আরেকজন বলছেন, ‘আরেকটা থা প্পড় দেন ভাই’। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক নেতা গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আমরা ভাইকে শ্রদ্ধা করি। দেখলেই সালাম দিতে যাই। সবাই একসাথে গেলে একটু জটলা তৈরি হয়। আর এটা প্রতিদিনই হয়ে থাকে। কিন্তু এজন্য তো ভাই থা প্পড় দিতে পারেন না।’

এই নেতা আরও বলেন, ‘আব্বাস হল কমিটির পদধারী নেতা। তাকে সবার সামনে এভাবে থা প্পড় দেয়া উচিত হয়নি। অনেকে কিছু না বললেও ভেতরে ভেতরে সবাই ক্ষুব্ধ।’

বিষয়টি নিয়ে দিদার আব্বাস বলেন, ‘আপনারা বিষয়টি যেভাবে নিচ্ছেন আসলে সেরকম কিছু হয়নি। টিএসসিতে ঢোকার জায়গা ছোট হওয়ার কারণে একটু জটলা হয়েছিল। এটা দেখে শোভন ভাই গাড়ি থেকে নেমে জটলা কমাতে এটা করেছেন।’ এ বিষয়ে জানতে মোবাইলে কয়েকবার কল দিলে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধূরী শোভনের ফোন ব্যস্ত পাওয়া যায়।
সূত্র সময়ের কণ্ঠস্বর

ঢাকায় শুকরের মাংস-চর্বি দিয়ে বানানো হচ্ছে সয়াবিন তেল

স্টাফ রিপোর্টার: ঢাকায় শুকরের মাংস-চর্বি দিয়ে বানানো হচ্ছে সয়াবিন তেল!

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক- রাজধানীর ধামরাইয়ে একটি ভোজ্যতেল তৈরির কারখানায় অভিযান চালিয়ে ১১ কোটি টাকা মূল্যের প্রায় ২ হাজার টন নিষিদ্ধ শুকরের মাংস, হাড়, চর্বি জব্দ করেছে র‍্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত।

এ ছাড়াও পুরাতন ও মেয়াদ উত্তীর্ণ ভোজ্য তেল (রাইস ব্র্যান অয়েল) পুনঃবাজারজাতকরণের উদ্দেশ্যে নতুন ‘প্রাইস অ্যান্ড ডেট ট্যাগ’ লাগানোর মতো ঘৃণ্য অপরাধে দোষী সাব্যস্ত হওয়ায় প্রতিষ্ঠানটিকে ৭৫ লাখ টাকা জরিমানা ও কারখানা সিলগালা করা হয়েছে।

শনিবার (০৩ আগস্ট) রাত ৮টার দিকে উপজেলার বাথুলি এলাকায় ভোজ্যতেল ও বিভিন্ন খাবার তৈরির কারখানা কেবিসি এগ্রো লিমিটেডে এ অভিযান পরিচালনা করেন র‌্যাব সদরদপ্তরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ সারওয়ার আলম।

এ সময় তাঁর সাথে আরো উপস্থিত ছিলেন ঢাকা জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা এমদাদুল হক ও ঢাকা জেলা মৎস্য কর্মকর্তা সৈয়দ মো. আলমগীর। আর অভিযানটি সমন্বয় করেন র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন ৪, ক্রাইম প্রিভেনশন কম্পানি ২ এর স্কোয়াড কমান্ডার সহকারী পুলিশ সুপার উনু মং।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলম জানান, কেবিসি এগ্রো (প্রাঃ) লিমিটেড হেলথ কেয়ার নামের প্রতিষ্ঠানটি সয়াবিন তেল তৈরি করার জন্যে গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসে হংকং থেকে বাংলাদেশে নিষিদ্ধ শুকরের চর্বি আমদানি করে। এছাড়াও একই উপকরণ ব্যবহার করে মাছ ও মুরগির খাদ্যও তৈরি করে বাজারজাত করে আসছিল তারা। খবর পেয়ে আমরা অভিযানে আসি এবং অভিযোগের সত্যতা খুঁজে পাই।

পরে কেবিসির মহাব্যবস্থাপক তাপস দেবনাথ ও পরিচালক জাহিদুর রহমানের কাছ থেকে ২ লাখ ৯৮ হাজার ২শত ৬০ মেট্রিক টন শুকরের চর্বি, মাংস ও হাড় আমদানির চালান ফরম জব্দ করা হয়। কিন্তু সেখান থেকে আমরা জব্দ করতে পেরেছি মাত্র ২ হাজার টন। ধারণা করা হচ্ছে বাকিগুলো তারা ব্যবহার করেছে ও বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করেছে।

ম্যাজিস্ট্রেট আরো জানান, শুকরের চর্বি ও মাংস যারা আমদানি করে এই প্রতিষ্ঠানের কাছে বিক্রি করছে তাদের চিহিৃত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ভেঙে পড়ল ১২০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণাধীন ব্রিজের দুটি গার্ডার

স্টাফ রিপোর্টার: ভেঙে পড়ল ১২০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণাধীন ব্রিজের গার্ডার
সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক- ঝিনাইদহ শহরের ধোপাঘাটা এলাকায় নবগঙ্গা নদীর ওপর সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগের অধীন ১২০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণাধীন ব্রিজের দুটি বৃহৎ আকারের গার্ডার (বেস্টক) ভেঙে পড়েছে।

রোববার (০৪ আগস্ট) দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। ব্রিজে গার্ডার ভেঙ্গে পড়ার বিকট শব্দে এলাকা কেঁপে ওঠে। এসময় অল্পের জন্য রক্ষা পায় ২০ জন শ্রমিক।
ঝিনাইদহ সওজের একটি সূত্র জানায়, জাইকার অর্থায়নে মনিকা লিমিটেড পিডব্লিউ ৩ প্যাকেজের আওতায় ব্রিজটি নির্মাণ করছে। দেড় বছর ধরে পাইলিং ও মাটি ভরাটের কাজ শেষে এখন ব্রিজের দুই পাশে গার্ডার দেওয়ার কাজ চলছিল।

কোম্পানির ম্যাসেঞ্জার ওলিউর রহমান জুয়েল জানান, জগ দিয়ে গার্ডার স্থানান্তরিত করার সময় অসাবধানতাবশত প্রায় ১০০ ফুট দৈর্ঘ্যের গার্ডার দুটি নিচে পড়ে ভেঙে গেছে। শ্রমিকরা এ সময় খাবার গ্রহণ করায় বড় ধরনের কোনো ক্ষতি হয়নি। তবে এতে প্রায় ৫০ লাখ টাকার ক্ষতি সাধিত হয়েছে।

অভিযোগ উঠেছে, কাজে ত্রুটি থাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটেছে। পরিদর্শন করে দেখা গেছে, ব্রিজের কাজে ব্যবহৃত পাইপ ও শার্টারগুলো দীর্ঘদিনের পুরোনো ও মরিচা ধরা। প্রায় দেড়শ টন ওজনের দুটি গার্ডার পড়ে গেছে।

প্রজেক্ট ম্যানেজার আব্দুস সালাম জানিয়েছেন, ব্রিজ ভাঙেনি, তবে উঠানোর সময় গার্ডার ভেঙে গেছে।
সাইট ইঞ্জিনিয়ার শাহাদত হোসেন জানান, বিষয়টি জেনে বুঝে বলা যাবে। তবে নিশ্চয় কাজে কোনো ত্রুটি ছিল।

ঝিনাইদহ সড়ক ও জনপথ বিভাগের নজরুল ইসলাম জানান,আমরা এ কাজের দেখভাল করছি না। ঢাকা থেকে একটি প্রজেক্টের মাধ্যমে কাজটি হচ্ছে। এই প্রজেক্টের একটি অফিস যশোরে আছে। আমরা ব্রিজ নির্মাণের কোন খোঁজই রাখি না, কারণ এটা আমাদের কোন প্রজেক্ট নয়।

থানার ভিতরেই তরুণীকে গণধ র্ষণের অভিযোগ ওসিসহ ৫ পুলিশের বিরুদ্ধে

স্টাফ রিপোর্টার:থানার ভিতরেই তরুণীকে গণধ র্ষণের অভিযোগ ওসিসহ ৫ পুলিশের বিরুদ্ধে!
সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক- খুলনার জিআরপি (রেলওয়ে) থানার ভিতরে এক তরুণীকে (২১) গণধ র্ষণের অভিযোগ উঠেছে। থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওসমান গনি পাঠানসহ ৫ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে ধ র্ষিতা তরুণী নিজে আদালতে এ অভিযোগ দায়ের করেছেন।

পরে আদালতের নির্দেশে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য রোববার (৪ আগস্ট) রাতে ওই নারীকে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। কিন্তু সময়স্বল্পতার কারণে পরীক্ষা হয়নি। আজ সোমবার (৫ আগস্ট) তাকে আবারও হাসপাতালে নেওয়ার কথা রয়েছে।
এদিকে ঘটনা ধামাচাপা দিতে ওসি ওসমান গনি ওই পরিবারকে মোটা অঙ্কের টাকা প্রদানের প্রস্তাবও দিয়েছেন বলে তারা দাবি করছেন।

ওই নারীর দুলাভাই জানান, গত ২ আগস্ট (শুক্রবার) তার শ্যালিকা (২১) যশোর থেকে ট্রেনে খুলনায় আসেন। এ সময় সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে রেলস্টেশনে কর্তব্যরত জিআরপি পুলিশের সদস্যরা তাকে সন্দেহমূলকভাবে ধরে নিয়ে যায়। পরে গভীর রাতে জিআরপি পুলিশের ওসি ওসমান গনি পাঠান তাকে ধ র্ষণ করেন। এরপর আরও ৪ জন পুলিশ কর্মকর্তা তাকে পালাক্রমে ধ র্ষণ করেন।

পরদিন শনিবার ওই নারীকে ৫ বোতল ফেনসিডিলসহ গ্রেফতার দেখিয়ে মামলা দিয়ে আদালতে সোপর্দ করা হয়। কিন্তু আদালতে বিচারকের সামনে নেয়ার পর ওই নারী জিআরপি থানায় তাকে গণধ র্ষণের কথা বলে দেন। এরপর আদালতের বিচারক জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ওই নারীর ডাক্তারি পরীক্ষা করার নির্দেশ দেন।

এদিকে ধ র্ষণে অভিযুক্ত ওসি ওসমান গনি এ ঘটনা ‘মিথ্যা’ বলে দাবি করেছেন। তিনি সোমবার সকালে বলেন, শুনেছি ওই তরুণী তাকে গণধ র্ষণ করা হয়েছে বলে আদালতে অভিযোগ করেছে। কিন্তু তাকে মহিলা এসআই এবং মহিলা কনস্টেবল ৫ বোতল ফেনসিডিলসহ আটক করে। আর থানায় রাতে তিনজন নারী পুলিশসহ ৮জন পুলিশ পাহারায় থাকে। সেখানে তাকে ধর্ষ ণের কোনো সুযোগ নেই। মূলত ফেসডিলের মামলা থেকে রক্ষা পেতে সে এ ধরণের মিথ্যা অভিযোগ করেছে বলেও তার দাবি।

নোবেলের তীব্র সমালোচনা করলেন দুই মন্ত্রী..!

স্টাফ রিপোর্টার:
‘সা-রে-গা-মা-পা’ খ্যাত গায়ক মাইনুল আহসান নোবেলকে নিয়ে ক’দিন যাবৎ বেশ ঝড় বইছে সামাজিক যোগোযোগ মাধ্যমে। এ বার মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আকম মোজাম্মেল হক ও পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান নোবেলের তীব্র সমালোচনা করলেন।

রবিবার দুপুরে রাজধানীতে ‘ চলচ্চিত্রে বঙ্গবন্ধুর অবদান’ শীর্ষক এক অনুষ্ঠানে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ.ক.ম মোজাম্মেল হক বলেন, মুক্তিযুদ্ধ শুধু পতাকা বা মানচিত্র পাবার জন্য হয়নি। যুদ্ধ হয়েছে মানুষের মুক্তির জন্য। যারা বলে পতাকা বদলাও, যারা বলে জাতীয় সঙ্গীত বদলাও বলে তারা স্বাধীনতাবিরোধী। এদের শেকড় জাতির পিতার খুনীদের সাথে।

একই অনুষ্ঠানে পরিকল্পনা এম এ মান্নান বলেন, বাংলাদেশ সম্পর্কে জেনে কথা বলুন। বিশেষ করে তরুণরা। আমাদের জাতীয় সঙ্গীত বাংলাদেশকে প্রতিনিধিত্ব করে না বলে সঙ্গীত শিল্পী নোবেল যে মন্তব্য করেছে তা জঘন্য মন্তব্য। এর প্রতিবাদ হওয়া উচিত। উল্লেখ্য কিছুদিন আগে, একটি সাক্ষাৎকারে নোবেল বলেন, প্রিন্স মাহমুদ স্যারের লেখা এই গানটা (বাংলাদেশ) নিয়ে আমি একটা কথা বলবো। তা নিয়ে হয়তো অনেকে অনেক কিছু আমাকে বলতে পারে। হয়তো খারাপ মনে করতে পারে। বাট এটা আমার পারসোনাল অপিনয়ন একদমই।

আমি মনে করি যে, আমাদের জাতীয় সঙ্গীত ‘আমার সোনার বাংলা’ আমাদের দেশটাকে যতোটা এক্সপ্লেইন করে তার থেকে কয়েক হাজার গুণে বেশি এক্সপ্লেইন করে প্রিন্স মাহমুদ স্যারের লেখা এই গানটা। আমাদের জাতীয় সঙ্গীত যেটা আছে সেটা হয়তো রূপক অর্থে অনেক কিছু বুঝিয়ে দেয়। বাট এটা কিন্তু একদম স্ট্রেইট ফরোয়ার্ডলি আমাদের ইতিহাস, আমাদের ঐতিহ্য, আমাদের আবেগের স্থানটা প্রপারলি তুলে ধরে।

তখন উপস্থাপক বলেন, ‘সেটার কারণ হয়তো রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের লেখাটা তো আসলে অনেক আগের লেখা। এনথেম হিসেবে লেখনওনি।’ এই কথার সাথে একমত পোষণ করে নোবেল আরও যোগ করেন, ‘আর আপনারা জানবেন যে, ঢাকা ভার্সিটির অনেকে কিন্তু মিছিলও করেছিলো যে এই গানটাকে জাতীয় সঙ্গীত হিসেবে করা হোক আরকি।’ সূত্র সময়ের কণ্ঠস্বর