আবার ও প্রকা‌শ্যে কু‌ পি‌য়ে হ ত্যা করা হল এক জন‌কে

স্টাফ রিপোর্টার:চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপ‌জেলার দর্শনা আন্তর্জা‌তিক রেল বন্দরে পল্টু (৩৫) না‌মে একজন‌কে প্র‌তিপক্ষের লোকজন প্রকা‌শ্যে এ‌লোপা তা‌ড়ি কু‌ পিয়ে হ ত্যা ক‌রে‌ছে। প্রকা‌শ্যে জনসন্মু‌খে হ ত্যা কর‌লেও নিহত পল্টু‌কে বাঁচা‌তে এ‌গি‌য়ে আ‌সে‌নি কেউ।

‌শুক্রবার বি‌কেল সা‌রে ৬ টার দি‌কে এ ঘটনা ঘটে। নিহত পল্টু দর্শনা পৌর এলাকার ঈশ্বরচন্দ্রপুর গ্রা‌মের আব্দুর রবের ছে‌লে।জনসন্মু‌খে হ ত্যা কা‌ন্ডের ঘটনা ঘট‌লেও হ ত্যাকা রীরা এতটাই প্রভাবশালী যে ‌তা‌দের ভ‌ য়ে স্থানীয় প্রতক্ষ্যদ‌র্শিরা কেউ মুখ খুল‌ছে না।কি কার‌ণে এই  হ ত্যা কা‌ন্ডের ঘটনা ঘ‌টে‌ছে সে বিষ‌য়ে স্পষ্ট কিছু জানা নাগে‌লেও পু‌লিশ বল‌ছে নিহ ত ও হাম লাকারীরা ক্ষমতা‌সিন দ‌লের স্থানীয় দু’গ্রু‌পের সদস্য।

দামুড়হুদা ম‌ডেল থানার অ‌ফিসার ইনচার্জ (ও‌সি) সুকুমার বিশ্বাস ঘটনার সত্যতা নি‌শ্চিক ক‌রে জানান, স্থানীয় দু’‌টি গ্রু‌পের ম‌ধ্যে দীর্ঘ‌দিন থে‌কে চ‌লে আসা কোন্দ‌ লের জের ধ‌রেই এই হ ত্যা কা‌ন্ডের ঘটনা ঘ‌টে‌ছে ব‌লে প্রাথমিক ভা‌বে ধারনা করা হ‌চ্ছে।

ও‌সি আরও জানান, এই  হ ত্যার সা‌থে জ‌ড়িত‌দের ধর‌তে পু‌লিশ মা‌ঠে র‌য়েছে।দর্শনা পৌর মেয়র ম‌তিয়ার রহমান জানান, পল্টু না‌মে একটা ছে‌লে এ‌লো পাতা‌ড়ি কো প খে‌য়েছে। তা‌কে চি‌কিৎসার জন্য চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতা‌লে নেওয়ার সময় প‌থের মা‌ঝে সে মা রা গিয়ে‌ছে শুনলাম। আ‌মি লা শ না দে‌খে নি‌শ্চিত ক‌রে কিছু বল‌তে পার‌বো না।
সূত্র সময়ের কণ্ঠস্বর

পশুর হাট থেকে পাঁচ দিনে আয় ২ কোটি টাকা…!

স্টাফ রিপোর্টার:
খুলনার জোড়াগেট কোরবানির পশুর হাট থেকে এবার পাঁচ দিনে সাত হাজার ৮০৫টি পশু বিক্রি হয়েছে। এ থেকে হাসিল আদায়ের মাধ্যমে খুলনা সিটি করপোরশনের (কেসিসি) আয় হয়েছে ২ কোটি ৮ লাখ টাকা। কেসিসি পরিচালিত এ হাটে ক্রেতা-বিক্রেতাদের সব সুযোগ সুবিধা বিদ্যামান ছিল। গত বছর থেকে এবার ৭৭৩টি পশু বিক্রি বেড়েছে। আর হাসিল আদায় বেড়েছে ৪২ লাখ ৭৪ হাজার ৭৪ টাকা।

কেসিসির নির্বাহী প্রকৌশলী (বিদ্যুৎ) জাহিদ হোসেন জানান, ৬  আগস্ট বিকাল ৫টা থেকে এ হাটে বেচা-কেনা শুরু হয়। ১২ আগস্ট ভোর রাত ৪টা ৫২ মিনিটে এ হাটে বেচা-কেনা শেষ করা হয়। এ সময়ের মধ্যে হাটে ৭৮০৫টি পশু বিক্রি ‘b। এ থেকে কেসিসি হাসিল হিসেবে পেয়েছে ২ ‘ ৮ লাখ ৯৯৫৫ টাকা। ২০১৮ সালে হাসিল আদায় হয়েছিল ১ কোটি ৬৫ লাখ ৩৫ হাজার ৮৮১ টাকা। ২০১৭ সালে হাসিল আদায় হয় ২ কোটি ১০ লাখ ৩০ হাজার ৩৪৩ টাকা।

প্রসঙ্গত,  কোরবানির পশুর কেনাবেচার জন্য প্রতিবছর নগরীর জোড়াগেট পাইকারি কাঁচা বাজারে পশুর হাট বসায় কেসিসি। আগে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান হাট পরিচালনা করতো। ২০০৯ সালে এ হাট থেকে কেসিসির আয় ছিল ৪৭ লাখ টাকা। ২০১১ সাল থেকে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় হাট পরিচালনার উদ্যোগ নেয় কেসিসি। সেই থেকে এ হাটের মাধ্যমে কোটি টাকার রাজস্ব আয় করছে কেসিসি।
সূত্র বাংলা ট্রিবিউন

জিয়াউর রহমান কখনোই মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন না….!

স্টাফ রিপোর্টার:
বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান কখনোই মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন না বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ।

তিনি বলেন, ‘জিয়াউর রহমান মুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষে কাজ করেননি। পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট জাতির পিতাকে হ ত্যার পর তিনি পাকিস্তানের পক্ষে কাজ করেছেন। দালাল আইন বাতিল করে সাড়ে ১১ হাজার যুদ্ধাপরাধীকে কারাগার থেকে মুক্তি দিয়ে তাদের পুনর্বাসন করেছেন। এসব কারণে জিয়াউর রহমানকে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে ভাবা যায় না।’

মঙ্গলবার (১৩ আগস্ট) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে কুষ্টিয়া কালেক্টরেট চত্বরে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নবনির্মিত ভাস্কর্যের উদ্বোধন শেষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেনএ সময় বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে হানিফ বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু শুধু আওয়ামী লীগের সম্পদ নয়, তিনি গোটা বাঙালি জাতির সম্পদ। বঙ্গবন্ধুকে অস্বীকার করা মানে স্বাধীন বাংলাদেশকে অস্বীকার করা। প্রতিটি রাজনৈতিক দল এবং বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষের নৈতিক দায়িত্ব হলো, তাঁকে সম্মান করা। বঙ্গবন্ধুকে যারা জাতির পিতা হিসেবে স্বীকার করে না, তারা প্রকৃতপক্ষে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও স্বাধীন বাংলাদেশের অস্তিত্বেই বিশ্বাস করে না।’

জেলা প্রশাসক (ডিসি) মো. আসলাম হোসেনের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন—কুষ্টিয়া-১ (দৌলতপুর) আসনের সংসদ সদস্য আ ক ম সরোয়ার জাহান বাদশাহ, কুষ্টিয়া-৪ (খোকসা-কুমারখালী) আসনের সংসদ সদস্য সেলিম আলতাফ জর্জ, পুলিশ সুপার (এসপি) এসএম তানভীর আরাফাত, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হাজী রবিউল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব সদর উদ্দীন খান, সাধারণ সম্পাদক আজগর আলী প্রমুখ। সূত্র বাংলা ট্রিবিউন

খাদ্য সংকট হওয়ার কথা না, বন্যায় কোনও খাদ্যশস্যই নষ্ট হয়নি : খাদ্যমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার:
বন্যাদুর্গত এলাকায় দ্রুত ৮টি খাদ্য গুদাম নির্মাণ করা হবে বলে জানিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার।

তিনি বলেছেন, ‘বন্যায় কোনও খাদ্যশস্য নষ্ট হয়নি। দেশে খাদ্য সংকট হওয়ার কোনও কারণ নেই। সারা দেশে ধানের জন্য ৫ হাজার মেট্রিক টন ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন ২শ’ সাইলো নির্মাণ করা হবে।’

সোমবার (৫ আগস্ট) সকালে মোংলার জয়মনিতে ৫০ হাজার মেট্রিক টনের সাইলো পরিদর্শনে এসে এসব কথা বলেন মন্ত্রী।এছাড়া মোংলা বন্দর দিয়ে ৪৬ শতাংশ খাদ্য আমদানি করা হচ্ছে জানিয়ে তিনি আরও বলেন, ‘মোংলার জয়মনির সাইলো আরও কার্যকরী করার জন্য জেটির সামনে ড্রেজিং এবং মোংলা-জয়মনি রাস্তার সংস্কার দ্রুততম সময়ে করা হবে।’

এসময় মন্ত্রীর সঙ্গে আরও উপস্থিত ছিলেন খাদ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ওমর ফারুক, খাদ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক আব্দুল আজিজ মোল্লা, বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশিদ ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহফুজ আফজাল।
সূত্র বাংলা ট্রিবিউন